কাঁকড়া রপ্তানির সোনালী সম্ভাবনা

নিতাই চন্দ্র রায়

এদেশে খাবার হিসেবে কাঁকড়ার চাহিদা না থাকলেও বিশ্বের অনেক দেশে সুস্বাদু খাবার হিসেবে কাঁকড়ার প্রচুর চাহিদা রয়েছে। চীন, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, হংকং, ভিয়েতনাম, কোরিয়া  এবং সিংগাপুরে এটি একটি জনপ্রিয় খাবার। কাঁকড়া চাষের অনেক সুবিধা আছে -কাঁকড়ার দ্রুত বংশ বিস্তার ঘটে। কাঁকড়া চাষে পরিশ্রম কম। অল্প উৎপাদন ব্যয়ে অধিক অর্থ আয় করা যায়। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের ফলে বিস্তীর্ণ অঞ্চলের ফসলী জমিতে লবণাক্ততা বাড়ছে। এতে দিন দিন কৃষকের আয়ের পথ সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। লবণাক্ত পানিতে কাঁকড়া চাষ করে এই সংকট অনেকাংশে কাটিয়ে উঠা সম্ভব এবং কাঁকড়া চাষ উপকূলীয় অঞ্চলে হতে পারে গরীব মানুষের বিকল্প আয়ের উৎস।

বর্তমানে উপকূলীয় অঞ্চলে কাঁকড়ার চাষ কর্মসংস্থান ও দারিদ্র বিমোচনে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। অনেকে কাঁকড়ার চাষ করে তাদের আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছেন।  দেশে দুই ধরণের কাঁকড়া পাওয়া যায়। একটি লোনাপানির আর একটি মিঠা পানির।  লোনা পানিতে লবণাক্ততার পরিমাণ যত বেশি হয়, কাঁকড়ার উৎপাদনও  তত বৃদ্ধি পায়। দক্ষিণাঞ্চলের নদী-নালা, খাল-বিল, বিস্তৃত চিংড়ি ঘের ও সুন্দরবনের গোটা বনাঞ্চলে প্রচুর লোনা পানির কাঁকড়া পাওয়া যায়। কাঁকড়ার গড় আয়ু এক থেকে দেড় বছর।  চিংড়ি ঘেরের  ৯০ শতাংশ কাঁকড়াই  সংগ্রহ করা হয়। প্রাকৃতিকভাবে বড় হওয়া কাঁকড়ার ২০ থেকে ২৫ শতাংশ আহরণ করা সম্ভব। দক্ষিণাঞ্চলে প্রায় দেড় থেকে দুই লাখ জেলে প্রাকৃতিক উৎস থেকে কাঁকড়া ধরে জীবিকা নির্বাহ করে। বেসরকারি  উন্নয়ন সংস্থা  কেয়ারের তথ্য মতে, কেবল সুন্দরবন এলাকায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার জেলে কাঁকড়া ধরে সংসার চালায়। কাঁকড়া চাষিরা জানান, বছরের ডিসেম্বর  থেকে ফেব্রুয়ারি এবং জুন থেকে জুলাই হচ্ছে কাঁকড়ার প্রজনন কাল। এ সময় গভীর সমুদ্রে ও সুন্দর বনের মধ্যে ডিম থেকে কাঁকড়ার জন্ম হয়। এসব পোনা  পানিতে ভেসে ভেসে নদ-নদী, খাল-বিল ও মাছের ঘেরে আশ্রয় নিয়ে বড় হয়।  প্রজননের সময় উপকূলীয় অঞ্চল ও সুন্দর বনের  বিস্তৃত এলাকায় জলাশয় ও তীরে প্রচুর কাঁকড়ার পোনা চোখে পড়ে। খুলনার পাইকগাছা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, বাগেরহাটের রামপাল ও মংলার খামারে তিন পদ্ধতিতে কাঁকড়ার চাষ হতে দেখা যায়।  প্রথম পদ্ধতিতে ছোট ছোট পুকুরে রেখে কাঁকড়া মোটাতাজা করা হয়। দ্বিতীয় পদ্ধতিতে বড়বড় ঘেরে চিংড়ির সাথে কাঁকড়ার চাষ করা হয়।  আর তৃতীয় পদ্ধতিতে উন্মুক্ত জলাশয়ে খাঁচায় আটকে রেখে কাঁকড়া চাষ করা হয়। খামারে কাঁকড়ার খাবার হিসেবে ছোট মাছ, কুঁচে, শামুকের মাংস দেওয়া হয়। এসব খাবার চাষিরা ১৫ থেকে ২০ টাকা কেজি  দরে কিনে থাকেন। মংলা এলাকার একজন চাষি জানান, প্রায় সারা বছরই কাঁকড়ার চাষ করা হয়। রপ্তানি উপযোগী প্রতিটি কাঁকড়ার গড় ওজন হয় ২০০ থেকে ২৫০ গ্রাম।  এসব কাঁকড়া ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হয়। কোনো কোনো সময় এক কেজি কাঁকড়া ৮০০ থেকে ৯০০ টাকাতেও বিক্রি করা হয়। বর্তমানে দক্ষিণাঞ্চলে ব্যক্তিগত উদ্যোগে কয়েক হাজার কাঁকড়া মোটাতাজাকরণ খামার গড়ে উঠেছে। শুধু  মাত্র সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলায় প্রায় ৯ হাজার কাঁকড়া মোটাতাজা করণ খামার রয়েছে। পাইকগাছার এক খামারী জানান, মাত্র এক বিঘার ঘেরে বছরে  দেড়  থেকে দুই লাখ টাকা লাভ করা সম্ভব। দুই থেকে আড়াই মাস বয়সের কাঁকড়া ঘেরে ছাড়ার পর ২০ থেকে ২৫ দিনেই তা বিক্রির উপযোগি হয়।

বিদেশে বাংলাদেশের কাঁকড়ার প্রচুর চাহিদা রয়েছে। বিশেষ করে চীন, তাইওয়ান, হংকং, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ও  থাইল্যান্ডে। ২০০৫-২০০৫ অর্থ বছরে শুধু পাইকগাছা থেকে ১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন কাঁকড়া রপ্তানি করা হয়, যার মূল্য প্রায় ৫ কোটি টাকা। ২০০৮-২০০৯ অর্থ বছরে এই রপ্তানি  বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৭০০ মেট্রিক টনে। গত বছর সারা দক্ষিণাঞ্চল থেকে ৭০ কোটি টাকার কাঁকড়া রপ্তানি করা হয়েছে।

প্রতিবছরই বাড়ছে কাঁকড়া রপ্তানির পরিমাণ ও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন। দেশে মোট ১৫ প্রজাতির কাঁকড়া উৎপাদিত হয়।  এর মধ্যে ১১ প্রজাতির সামুদ্রিক কাঁকড়া রয়েছে। শীলা এবং সাঁতারো কাঁকড়া বিদেশে বেশি রপ্তানি হয়। জীবন্ত ও হিমায়িত দু’ভাবেই কাঁকড়া রপ্তানি হয়।  রপ্তানিকৃত কাঁকড়ার  মধ্যে ৯২ শতাংশই যায় চীনে।  ১৯৭৭ সালে প্রথম বাংলাদেশ থেকে বিদেশে  মাত্র ২ হাজার ডলারের কাঁকড়া রপ্তানি করা হয়। ২০১১-১২ অর্থ বছরে ৭২ লাখ ডলারের কাঁকড়া রপ্তানি হয়েছে বাংলাদেশ থেকে। ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে  কাঁকাড়া রপ্তানি হয় ২ কোটি ২৯ লাখ ডলারের এবং  ২০০১৪-১৫ অর্থ বছরে কাঁকড়া রপ্তানির পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ২ কোটি ৫০ লাখ ডলারে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য মতে, ১৯৭৭ সালে বাংলাদেশ থেকে মাত্র ২ হাজার মেট্রিক টন কাঁকড়া বিদেশে রপ্তানি হলেও ২০০৮-০৯ সালে কাঁকড়া রপ্তানি হয় ২ হাজার ৯ ৭৩ মেট্রিক টন। ২০১১ -১২ সালে রপ্তানি বেড়ে দাঁড়ায় ৪ হাজার ৪১৬ মেট্রিক টনে এবং ২০১৩ -১৪ সালে বাংলাদেশ থেকে ৮ হাজার ৫২০ মেট্রিক টন কাঁকড়া রপ্তানি করা হয়।

কাঁকড়া চাষে সম্পৃক্ত  হয়ে অনেক তরুণ যুবক  নতুন আয়ের পথ খুঁজে পাচ্ছে। এতে করে বেকারত্ব কমছে। বাড়ছে কর্মসংস্থান ও বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন। আমাদের দেশ ছাড়াও থাইল্যান্ড, মিয়ানমার এবং ভারতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে কাঁকড়ার চাষ হচ্ছে। দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে অনেক পতিত জায়গা আছে।  এসব জায়গায় অনায়াসে কাঁকড়ার খামার গড়ে তোলা যায়। সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোক্তাদের স্বল্পকালীন প্রশিক্ষণ ও ঋণের ব্যবস্থা করা হলে কাঁকড়া উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। সেইসাথে রপ্তানি আয়ও বাড়ানো সম্ভব হবে। কাঁকড়া রপ্তানিকারকগণ  বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। কাঁকড়া রপ্তানিতে বন বিভাগের অনাপত্তিপত্র লাগে। এই অনাপত্তি পত্র পেতে রপ্তানিকারকদের অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এ ছাড়া কাঁকড়া আহরণ, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং পরিবহনের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হয় রপ্তানিকারকদের। এসব সমস্যার সমাধান হলে সম্ভাবনাময় এই শিল্প অনেক  দূর এগিয়ে যাবে, রপ্তানি আয় বৃদ্ধি পাবে এবং দেশের অর্থনীতিতে   সূচিত হবে নতুন অধ্যায়।

————————————–লেখকঃ

মহাব্যবস্থাপক (কৃষি), নর্থ বেঙ্গল সুগারমিলস্ লিঃ, গোপালপুর, নাটোর

ইমেইল:netairoy18@yahoo.com

মোবাইল: ০১৭২২৬৯৬৩৮৭

FacebookTwitterGoogle GmailEmailYahoo MailYahoo MessengerShare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *