কোরবানির ঈদ : কোলেস্টেরল হতে সাবধান

ডা. সজল আশফাক

মাংস-পোলাও এবং চর্বি-ঘিয়ের ব্যাপক আয়োজন হয় কোরবানি ঈদের ডাইনিং টেবিলে৷ খাওয়ার পর এ চর্বি বাসা বাঁধে মানুষের রক্তে, বেড়ে যায় রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা৷ কোলেস্টেরল মাত্রা বেশি থাকা মানেই রক্তে শত্রুর সঙ্গে বসবাস৷ রক্তের বাড়তি কোলেস্টেরল বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় হৃত্‍পিণ্ডের মাংসপেশিকে নির্জীব মৃতাবস্থায় নেওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকে৷
মাংসের সঙ্গে কোলেস্টেরলের একটি নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে৷ কোরবানি ঈদে মাংস একটু বেশিই খাওয়া হয়৷ মাংস-পোলাও এবং চর্বি-ঘিয়ের ব্যাপক উপস্থিতি থাকে ঈদের খাবারগুলোতে৷ খাওয়ার পর এ চর্বি বাসা বাঁধে মানুষের রক্তে, বেড়ে যায় রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা৷ কোলেস্টেরল মাত্রা বেশি থাকা মানেই রক্তে শত্রুর সঙ্গে বসবাস৷ রক্তের বাড়তি কোলেস্টেরল বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় হৃত্‍পিণ্ডের মাংসপেশিকে নির্জীব মৃতাবস্থায় নেওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকে৷ আর এ কারণেই কোরবানির ভোজনে কোলেস্টেরলের কথা মনে রাখতে হবে৷ বিশেষ করে যাদের রক্তে কোলেস্টেরল মাত্রা বেশি কিংবা বিপদ সীমার কাছাকাছি রয়েছে৷ স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের কাছে কোলেস্টেরল একটি ভীতিকর উপাদান৷ বয়স চলি্লশের কোঠায় পেঁৗছনোর পর রক্তের কোলেস্টেরল মাত্রা জেনে নেওয়া প্রয়োজন৷ কারণ কোলেস্টেরল নীরবে আপনার মৃত্যু ডেকে আনতে পারে৷ মানুষের শরীরের যাবতীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনাকারী দু’টি অঙ্গের অসুস্থতার জন্যই কোলেস্টেরলকে দায়ী করা যায়৷ হৃত্‍পিণ্ডের হার্ট অ্যাটাক এবং মস্তিষ্কের স্ট্রোক এ দু’য়ের জন্য কোলেস্টেরলকে দোষারোপ করা হয়ে থাকে৷
রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ে অনেকের মধ্যেই বিভ্রান্তি রয়েছে৷ কেউ কেউ রক্তে টোটাল কোলেস্টেরল মাত্রা ২০০ মি.গ্রাম/ডিএল থাকলেই সেটাকে নিরাপদ বলে মনে করেন৷ আসলে ব্যাপারটা কিন্তু তা নয়৷ টোটাল কোলেস্টেরল মাত্রা ১৫০ মি.গ্রাম/ ডিএল বা তার নিচে হলে তাকে নিরাপদ মাত্রা বলা যায়৷ সাধারণত নিরাপদ মাত্রার কোরেস্টেরল থাকাবস্থায় হার্ট অ্যাটাক দেখা যায় না৷ কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে কোলেস্টেরলের মাত্রা ১৫০-২০০ থাকাবস্থায় হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কোলেস্টেরল মাত্রা ৩০০ এর চেয়ে দ্বিগুণ বেশি হতে পারে৷ প্রকৃতপক্ষে ১৬ বছর মেয়াদি আমেরিকার এক গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের কোলেস্টেরল মাত্রা ১৫০-২০০-এর মধ্যে তাদের প্রায় শতকরা ৩৫ ভাগ হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে থাকেন৷ তাই কোলেস্টেরল নিয়ে উদ্বিগ্ন না হয়ে এ সম্পর্কে সচেতন হওয়াটাই আসল কাজ৷ সেই সঙ্গে কোলেস্টেরল মাত্রা কমানোর ব্যবস্থাও নিতে হবে৷
ধরুন আপনি সুস্থ আছেন কিন্তু কোলেস্টেরল মাত্রা ১৯৮ অথবা ১৮৯৷ কোলেস্টেরলের এই মাত্রা নিয়ে বিমর্ষ হওয়ার কিছু নেই৷ দেখে নিন আপনার এইচডিএল (হাইডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) বা ভালো কোলেস্টেরল মাত্রা৷ তারপর হিসাব করে নিন টোটাল কোলেস্টেরল এবং এইচডিএলএর মাত্রা ৷ যদি এই অনুপাত ৪-এর নিচে থাকে তবে আপনি রিলাক্স মুডে থাকতে পারেন৷ তখন সত্যিকার অর্থেই আপাতত হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থেকে আপনি মুক্ত বলে ধরে নিতে পারেন৷ কাজেই টোটাল কোলেস্টেরল মাত্রা ২০০-এর বেশি হলেই যে তা ঝুঁকিপূর্ণ হবে এক্ষেত্রে সেটা প্রযোজ্য নয়৷ কারণ উচ্চমাত্রার এইচডিএল (ভালো জাতের কোলেস্টেরল) হার্ট অ্যাটাকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে৷ কিন্তু কোলেস্টেরল মাত্রা ৩০০-এর বেশি থাকাটা আসলেই খুব বেশি বলে ধরে নিতে হবে৷
ষ ঈদে কিছু কৌশল মেনে চলা যেতে পারে৷ যেমন মাংসের দৃশ্যমান চর্বি মাংস কাটার সময়েই কেটে কেটে বাদ দেওয়া যেতে পারে৷ তাছাড়া রান্নার আগে মাংসকে আগুনে ঝলসে নিলেও খানিকটা চর্বি গলে পড়ে যায় ৷ আবার মাংসকে হলুদ লবণ দিয়ে সিদ্ধ করে ফ্রিজে ঠাণ্ডা করলেও কিছুটা চর্বি মাংস থেকে বেরিয়ে জমাকৃত অবস্থায় থাকবে৷ তখন বাড়তি চর্বিটুকু চামচ দিয়ে আঁচড়িয়ে বাদ দেওয়া খুবই সহজ৷ আবার মাংসকে র্যাক বা ঝাঁঝরা পাত্রে রেখে অন্য একটি পাত্রের ওপর বসিয়ে চুলোতে দিলে নিচের পাত্রটিতে মাংসের ঝরে যাওয়া চর্বি জমা হবে৷ এই পদ্ধতিতেও মাংসের কিছুটা চর্বি ঝরে যাবে৷ মাংস ছাড়া অন্য উত্‍স থেকে যাতে কোলেস্টেরল কম আসে সে বিষয়েও লক্ষ্য রাখা যেতে পারে৷ এ ক্ষেত্রে রান্নার কাজে ঘি, বাটার অয়েল ব্যবহার না করে সয়াবিন কিংবা পাম অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে৷ মিষ্টান্ন তৈরির জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে স্কিম্ড বা ননীতোলা দুধ৷ একইভাবে ডিমের তৈরি যেকোনো খাবার থেকে কুসুম বাদ দেওয়া যেতে পারে৷ তাছাড়া প্রচুর শাক-সবজি, ফলমুল খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে৷ খাবারের সঙ্গে সালাদ রাখতে হবে৷ সালাদ এবং শাক-সবজি খাবারের চর্বিকে শরীরে শোষিত হতে বাধা দেয়৷ বিজ্ঞানীদের মতে, প্রতিদিন ১০ গ্রামের মতো দ্রবণীয় আঁশযুক্ত খাবার গ্রহণ করলে কোলেস্টেরলের পরিমাণ ৫-১০ শতাংশ কমতে পারে৷
কাজেই কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানোর মাধ্যমে হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে চাইলে পশুচর্বি বর্জন করতে হবে৷ এতে রক্তে খারাপজাতের কোলেস্টেরল এলডিএল মাত্রা কমে যাবে৷ পাশাপাশি যদি শাক-সবজি খাওয়ার মাত্রা বাড়িয়ে দেওয়া যায় সেক্ষেত্রে শাক-সবজির এন্টি অক্সিডেন্ট রক্তনালীর ভেতরের দেয়ালে খারাপজাতের কোলেস্টেরল এলডিএল-এর আঠালোভাবে লেগে থাকার প্রবণতা হ্রাস করে৷
যাই হোক কথা হচ্ছিল কোরবানি নিয়ে৷ অর্থাত্‍ কোরবানির মাংস নিয়ে বলতে যেয়ে বলা হয়ে গেছে কোলেস্টেরল সম্পর্কে৷ সেই সঙ্গে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক সম্পর্কেও বলা হয়েছে৷ শেষ করার আগে একটা কথা বলে রাখি, কোরবানির মর্মকথা হচ্ছে আত্মত্যাগ৷ কোরবানিতে মাংস ভোজনের ব্যাপারে আত্মত্যাগের মহিমাকে অনুসরণ করলেই কিন্তু বাড়তি কোলেস্টেরলের ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব৷
লেখক: সহযোগী অধ্যাপক নাক, কান ও গলা বিভাগ
হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল৷

FacebookTwitterGoogle GmailEmailYahoo MailYahoo MessengerShare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *