প্রশ্নোত্তরে কৃষি

কৃষিবিদ ড. এম. এ. মান্নান

প্রশ্ন : কৃষিবার্তার ড. মান্নান স্যার ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আমার সালাম ও শুভেচ্ছা। তাই গাছ লাগানোর বিশেষ করে ফল গাছ লাগানোর পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চাই।
মোঃ নওশাদ
গ্রামঃ আগৈলঝাড়া
বরিশাল।
উত্তর : ভাই নওশাদ আপনার পত্রের জন্য ধন্যবাদ। ফল গাছ রোপণের জন্য যে সমস্ত বিষয় করণীয় তা নিম্ন দেওয়া হলো।
* প্রথমে আপনি স্থান নির্বাচন করুন। যে জায়গায় ফলের গাছটি লাগাতে চান সে স্থানটিতে যেন বর্ষাকালে পানি না উঠে ততটা উঁচু হওয়া দরকার।
* তারপর ৩ ফুট ব্যাস বিশিষ্ট গোলাকার ৩ ফুট গভীর একটি গর্ত করুন। গর্তের উপরের মাটি এক দিকে এবং নিচের মাটি আরেক দিকে রাখুন।
* উপরের মাটি গুলোর সাথে ১০ কেজি পঁচা ঝুরঝুরে গোবর ৪০০ গ্রাম টিএসপি, ২০০ গ্রাম এমপি, ২০০ গ্রাম জিপসাম এবং ৫০ গ্রাম জিংক সালফেট ভাল করে মিশিয়ে গর্তের মধ্যে রেখে দিন। তারপর নিচের মাটি গুলো গর্তে রেখে এ অবস্থায় ১ সপ্তাহের জন্য রেখে দিন।
* এ বার ভাবুন কি আপনার বাড়ীতে কি ফল গাছ আছে আর কি ফল গাছ লাগাবেন। এমন ফল গাছ নির্বাচন করুন যাতে এখন বৎসরের যে সময়টাতে ফল পাওয়া যায় না সে সময় যেন ফল পাওয়া যায়।
* পরিচিত এবং সুনাম রয়েছে এমন নার্সারী থেকে ফল সংগ্রহ করতে হবে।
* ১ সপ্তাহ পর গর্তের মাটি ওলট পালট করে আবার ১ সপ্তাহ রেখে দিন।
* এবার নার্সারী থেকে নির্বাচিত ফলের কলম নিয়ে আসুন। দেখবেন কলমটি যেন সতেজ সবল এবং রোগ ও পোকামুক্ত হয়।
* আজ কাল বাজারে যে সব চারা বা কলম পাওয়া যায় সেগুলো প্রধান মূলটা কেটে ফেলা হয়। প্রধান মূল কাটা চারা বা কলম বাদ দিয়ে প্রধান মূল সহ চারা বা কলম নিয়ে এসে ঐ গর্তে লাগাতে হবে।
* কলমটি লাগানোর সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে মাটির বলটি না ভেঙ্গে যায়। মাটির বলটি এমন পরিমাণ গভীরে দিতে হবে যাতে মাটির বলটির উপরের সমান অংশটি মাটির উপরি তলের সমান থাকে।
* ভাল ভাবে চারা বা কলমটি রোপণের পর হালকা সেচ দিতে হবে। খুটি গেঁড়ে চারা বা কলমটি বেঁধে দিতে হবে এবং বেড়ার ব্যবস্থা করতে হবে।
আশা করি এ ভাবে ফল গাছ রোপণ করলে ভাল ফলাফল পাওয়া যাবে। ধন্যবাদ।
প্রশ্নঃ কৃষিবার্তা পত্রিকাটি আমার খুবই প্রিয় । এখান থেকে অনেক কিছু জানতে পারি বলে কৃষিবার্তার মান্নান স্যারসহ সবাইকে আমার শুভেচ্ছা। আমি একজন কৃষিবার্তার নিয়মিত পাঠক। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ভিজা স্যাঁতস্যাঁতে মাটিতে কি পেয়ারার গাছ লাগানো যাবে। জানালে খুবই উপকৃত হবো।
মোঃ হুমায়ুন কবির
উপজেলা : মুক্তাগাছা
জেলা- ময়মনসিংহ
উত্তর : ভাই আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।
* বাংলাদেশের আবহাওয়ায় পেয়ারা ভাল জন্মে।
* বাংলাদেশের মাটি ও আবহাওয়া পেয়ারা চাষের উপযোগী।
* যে কোন ধরণের মাটিতেই পেয়ারা চাষ করা যায়।
* তবে জলাবদ্ধতা বা মাটিতে মোটেই আদ্রতা না থাকা ক্ষতিকর।
* ভাল ফলনের জন্য যে মাটিতে বৃষ্টির পানি দাড়ায় না, জৈবপদার্থ ও পুষ্টি সমৃদ্ধ, গভীর, পি এইচ ৫-৮, এরূপ মাটি উত্তম।
* ভিজা স্যাঁতস্যাঁতে মাটিতে যদি গর্তকরা যায় এবং নিচের মাটি যদি শক্ত ও শুকনো হয় তবে কোন অসুবিধা নাই।
* আর যদি নিচের মাটিও কাঁদা হয় তবে সে মাটিতে না লাগিয়ে মাটি শুকানের জন্য অপেক্ষা করা ভাল। ধন্যবাদ।
প্রশ্ন : ভাইয়া ও আপু আমাদের বড়ির পাশের জমিতে কালো বেগুন চাষ করেছি দেখতে খুব সুন্দর কিন্তু ভিতরে পোকা। এ পোকা থেকে কি প্রয়োগ ব্যবহার করলে পোকা থেকে বাঁচা যাবে দয়া করে বলে দিবেন।
রেবেকা সুলতানা
বগুড়া সদর, বগুড়া।
উত্তর : বোন রেবেকা সুলতানা, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। এটি বেগুনের ফল ও কান্ড ছিদ্রকারী পোকা।
* এ পোকা কান্ড ও ফল ছিদ্র করে ভিতরে ঢুকে এবং কান্ড ও ফলের ভিতরের অংশ খেয়ে ফেলে ।
* অনেক সময় পোকার কীড়া এমন ভাবে ভিতরে ঢুকে যে বাহির থেকে বুঝা খুব কঠিন হয়ে যায়। তবে কখনও কখনও বেগুনের গায়ে পোকার মল দেখা যায়।
এ পোকা থেকে কি ভাবে বাঁচা যাবে তার প্রতিকারঃ
* যে ফলে ইতি মধ্যেই আক্রমণ হয়েছে তাকে আর সারানোর উপায় নাই।
* এ সকল আক্রান্ত কান্ড ও ফল তুলে নষ্ট করে ফেলতে হবে।
* পাতা ও ডগা থেকে খুঁজে খুঁজে ডিম নষ্ট করে ফেলতে হবে।
* বিষটোপ ব্যবহার করে পোকা মারা যায়।
* সেক্স ফেরোমন ব্যবহার করে পুরুষ পোকা নষ্ট করে ফেলতে হবে।
* জৈব কীটনাশক নিমবিসিডিন প্রতিলিটার পানিতে ৪ মিলি মিশিয়ে ¯েপ্র করে দিতে হবে।
* আক্রমণের মাত্রা বেশী হলে প্রতিলিটার পানিতে ২ মিলি রিপকর্ড মিশিয়ে ¯েপ্র করে দিতে হবে।
কৃষিজীবী ভাই ও বোনেরা আপনাদের কৃষি বিষয়ক যে কোন সমস্যায় আমাদেরকে লিখবেন। আমরা পরামর্শ জানানোর চেষ্টা করব। পরামর্শমত চাষাবাদ করে কাঙ্খিত ফলন পাবেন এই প্রত্যাশায় শেষ করছি। ধন্যবাদ সবাইকে।

FacebookTwitterGoogle GmailEmailYahoo MailYahoo MessengerShare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *