প্রশ্নো্ওরে কৃষি

প্রশ্ন : আমি আমার নিজের জমি থেকে ধানের বীজ রাখব। আমাকে কি কি বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে। জানালে খুশী হব।

মোঃ সামছু মিয়া

গ্রামঃ পালিশারা, হাজিগঞ্জ, চাঁদপুর।

সামছু ভাই, আপনার পত্রের জন্য ধন্যবাদ। নিজের বীজ নিজে রাখতে পারলে ভাল। তার জন্য কিছু বিশেষ ব্যবস্থা নিলে ভাল হয়।   প্রথমতঃ ভাল জাতের বীজ আবাদ করা দরকার।

*             যে জমি থেকে বীজ রাখতে চাচ্ছেন সে জমি টা একটু বড় হলে ভাল হয়।

*             জমিতে যেন কোন প্রকার রোগ বা পোকার আক্রমন না হয় সে জন্য প্রতিনিয়ত জমি তদারকি করা দরকার।

*             কোন প্রকার রোগ বা পোকার আক্রমন হয়ে গেলে সাথে সাথে তা দমনের ব্যবস্থা নিতে হবে।

*             জমিতে ছড়া এলে প্রতিনিয়ত তদারকি করে ভিন্ন জাতের ছড়া গুলো উপড়ে ফেলতে হবে অর্থ্যাৎ রগিং করতে হবে।

*             মেঘলা দিন বাদ দিয়ে ধান কাটতে হবে। এবং পরিষ্কার স্থানে মাড়াই ও ঝাড়াই করে এমন ভাবে শুকাতে হবে যেন ১২% এর বেশী আদ্রতা না থাকে।

*             শুকানো ধান ছায়ায় ঠান্ডা করে বিষকাটালী বা নিম পাতা সহ পলিথিনের কাল বস্তায় রাখতে হবে।

*             ১ মাস পর পর তথা মাঝে মাঝে নামায়ে হালকা করে শুকাতে হবে।

এ ভাবে ব্যবস্থা নিলে আপনি নিজের জমি থেকে-ই ভাল বীজ রাখতে বা সংরক্ষণ করতে পারবেন। নিজের জমি থেকে-ই ভাল বীজ রেখে ভাল ফলন ঘরে তুলুবেন এই প্রত্যাশায় আপনাকে ধন্যবাদ

প্রশ্ন : এখনত গাছ লাগানোর সময়। আমি ভাবছি কিছু ফল গাছ লাগাব। আমি এমন ফল গাছ লাগাতে চাই যাতে সারা বৎসরই ফল ক্ষেতে পারি। কিকি ফল গাছ লাগালে সারা বছর ফল ক্ষেতে পারব? জানালে খুশী হব।

মোঃ শাওন আলী

থানা- কুমার খালী, জেলা- কুষ্টিয়া

উত্তর : শাওন ভাই, আপনার পত্রের জন্য ধন্যবাদ। এত সুন্দর প্রশ্নটা আপনার মাথায় আসল কি করে। খুবই সুন্দর প্রশ্ন। এ প্রশ্নের জবাবে সবাই একটা বিশেষ বিষয় জানতে পারবে।

*             এখন গাছ লাগানোর সময়। গাছ লাগানোর ক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একটা সুত্র আছে। তিনি বলেন সবাই তিনটি করে গাছ লাগানো দরকার।

*             একটি ফলদ, একটি বনজ বা কাঠের গাছ এবং অন্যটি হচ্ছে ঔষধি গাছ।

*             আপনার প্রশ্ন হচ্ছে কিকি ফল গাছ লাগালে সারা বছর ফল পাওয়া যাবে।

*             ফলের ক্ষেত্রে বলব, পেপে, কলা, নারিকেল, লেবু, আম, বরই, কামরাঙ্গা, জামরুল, সফেদা, আমড়া, পেয়ারা ও    কমলা।

এ কয়টি গাছ আপনার বড়ীতে থাকলে আপনি সারা বছর সুষম পুষ্টিতে ফল পাবেন, ইনশাল্লাহ।

প্রশ্ন :  আমার কয়েকটি আম গাছ আছে। আমের ফলন ভালই হয়। কিন্তু মাঝে মাঝে আম ফেটে যায়। আমার বাড়ির পার্শ্বের একভাইও একই রকম সমস্যার কথা আমাকে বলেছে। কেন আম ফেটে যায় এবং আম ফেটে যাওয়া বন্ধ করতে হলে কি করতে হবে।

মো. মোকাররম

গ্রামঃ বড় বাদুরা, বাগেরহাট, খুলনা।

উত্তর : ভাই মোকাররম আপনাকে আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। হ্যা অনেক সময় আম ফেটে যায় তার বেশ কিছু কারণ আছে। যেমনঃ দীর্ঘ সময় যদি অতি আদ্র বা অতি শুষ্ক আবহাওয়া বিরাজ করে তাহলে অনেক সময় আম ফেটে যায়।

*             আবার অনেক দিন খরা থাকার পর হঠাৎ বৃষ্টি হলে আম ফেটে যায়।

*             উচ্চ তাপমাত্রা নিু আদ্রতা এবং মাটিতে কম রস থাকলে আম ফেটে যায়।

*             তাছাড়া আম বড় হওয়ার প্রথম দিকে যদি মাটিতে রস কম থাকে এবং পরে যদি আম দ্রুত বড় হতে থাকে তাহলেও আম ফেটে যায়।

প্রতিকার :

*             আম যদি ফেটেই যায় তা হলে আর করার কিছুই থাকে না। তাই আগে থেকেই ব্যবস্থা নিতে হবে।

*             ফল বড় হওয়ার সময় মাটিতে যদি যথেষ্ট পরিমাণ রস না থাকে তাহলে নিয়মিত আম গাছে সেচ দিতে হবে

*             এবং গাছের গোড়ায় মালচিং বা জাবড়া প্রয়োগ করতে হবে।

*             মোকাররম ভাই এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে আপনার এবং আপনার পাশ্ববর্তী কৃষক ভাই ও বোনদের আম আর ফাটবে না। ধন্যবাদ।

 

প্রশ্ন : কৃষি বার্তার সবাইকে ধন্যবাদ আমার একটি আমড়া গাছ আছে। আমড়া গাছের বয়স দুই বৎসর। কিন্তু পাতা ঝরে পড়ে যায়। যাতে পাতা না ঝড়ে পড়ে সে বিষয়ে বলবেন।

শাহীন, চরকাওনা

পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ

উত্তরঃ শাহীন ভাই আমড়া গাছের পাতা ঝরে যাচ্ছে শুনে খারাপই লাগছে। তবে চিন্তার কিছুই নাই। এখন কি করা দরকার সে সম্পর্কে লিখছিঃ

শীতকালে স্বভাবতই পাতা ঝরে যায়। তাতে উদ্বিগ্নতার কিছু নাই্ তবে তবে অন্য সময় পাতা ঝরলে গাছটির চারপার্শ্বে মাটি কুপিয়ে ১০০ গ্রাম ইউরিয়া, ১০০ গ্রাম টিএসপি, ১০০ গ্রাম এমওপি এবং ১০ কেজি জৈব সার/ঝুর ঝুরে গোবর মাটির সাথে ভালভাবে মিশিয়ে দিতে হবে এবং চার পার্শে চারটি গর্ত করে সিলভামি* ট্যাবলেট মাটিতে পুতে দিতে হবে এবং পরে হালকা সেচ দিয়ে দিতে হবে। গাছের গোড়ার মাটিতে যাতে আদ্রতা থাকে সেজন্য জাবড়া প্রয়োগ করে দিতে হবে। আশা করি গাছের পাতা ঝড়ে পড়বে না।

FacebookTwitterGoogle GmailEmailYahoo MailYahoo MessengerShare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *