বিশ্ব খাদ্য দিবস : প্রাসঙ্গিক ভাবনা

১৬ অক্টোবর বিশ্ব খাদ্য দিবস৷ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (FAO) উদ্যোগে প্রতি বছর সদস্যভুক্ত সব দেশে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয় দিবসটি৷ ১৯৮১-৮২ সনে প্রথমবার ‘সবার আগে খাদ্য’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এ দিবসটি পালনের সূচনা হয়৷ এরপর থেকে ধারাবাহিকভাবে বিশ্বব্যাপী আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত এবং পুষ্টি সমৃদ্ধ বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত হয়ে আসছে৷ বিশ্ব খাদ্য দিবসের গতানুগতিক কর্মধারায় এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারিত হয়েছে “স্বাস্থ্য সম্মত খাদ্য ব্যবস্থার উপর জনস্বাস্থ্য নির্ভরশীল” খাদ্য মানুষের মৌলিক অধিকার৷ তাই একটি দেশের খাদ্য নিরাপত্তা বিধান করা সর্বাগ্রে প্রয়োজন৷ খাদ্য উত্‍পাদন বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান ও আয় বৃদ্ধি এবং যথাযথ পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করা খাদ্য নিরাপত্তার অন্যতম শর্ত৷
বর্তমানে খাদ্য উত্‍পাদন, আহরণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং বিদেশ থেকে খাদ্য আমদানি সব ক্ষেত্রেই বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে৷ সে কারনে সারা বিশ্বের ক্ষুধা নিরসণ ও খাদ্য নিরাপত্তা আজ এক বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে৷ উন্নয়নশীল ও জনবহুল দেশ হিসেবে বাংলাদেশে এ সমস্যা আরো প্রকট৷ বিশ্ব ব্যাংকের মতে, ২০১০-১১ সালে খাদ্য মূল্য বৃদ্ধির কারনে প্রায় ৭০ মিলিয়ন লোক চরম দারিদ্রের যাঁতাকলে পিষ্ট হচ্ছে৷
বিশ্বায়নের চাপ, উপর্যুপরি প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও আন্তর্জাতিক খাদ্য বাজারে অস্থিরতা আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় সঙ্কটকালে খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনের জন্য কৃষিতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি, অভ্যন্তরীণ খাদ্য উত্‍পাদন, সংরক্ষণ ও সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং জনসচেতনতা বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই৷ আমাদের খাদ্য আমাদেরই উত্‍পাদন করতে হবে৷ আমাদের দেশের মাটি, পানি, প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার এবং নিজস্ব প্রচেষ্টার মাধ্যমেই তা করতে হবে৷ পরিবর্তিত জলবায়ুতে খাপ খাইয়ে আমাদের উত্‍পাদন নিশ্চিত করতে হবে৷ সব সংকট মোকাবেলা করে নিশ্চিত করতে হবে খাদ্য নিরাপত্তা৷ একটি জাতির স্থিতিশীলতার জন্য-খাদ্যের দাম নিয়ামকের ভূমিকা পালন করে৷ তাই খাদ্যের দাম নিয়ন্ত্রনের জন্য নিজস্ব উত্‍পাদন বাড়ানোর দিকে জোর দিতে হবে৷ এজন্য সরকারি বেসরকারি পর্যায় থেকে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে৷ তাই এবারের বিশ্ব খাদ্য দিবসের প্রতিপাদ্য যথর্াথ হয়েছে বলে আমরা মনে করি৷ একারনে কৃষিবাতর্ার এসংখ্যাকে বিশ্ব খাদ্য দিবসের বিশেষ সংখ্যা হিসেবে প্রকাশ করা হয়েছে৷ কৃষিবাতর্া পরিবারের পক্ষ থেকে এবারের বিশ্ব খাদ্য দিবসের সফলতা কামনা করছি৷

প্রিয় পাঠক! ত্যাগের মহিমা নিয়ে মুসলিম জাহানে আবার সমাগত পবিত্র ঈদুল আযহা৷ পবিত্র ঈদুল আযহায় আমাদের সকল পাঠক, শুভানুধ্যায়ি ও বিজ্ঞাপনদাতাদের প্রতি রইল আগাম ঈদ মোবারক৷

FacebookTwitterGoogle GmailEmailYahoo MailYahoo MessengerShare